মুরাদনগরে ১০ বছরেও সংস্কার হয়নি ৭ কিলোমিটার গ্রামীন সড়ক।


deshsomoy প্রকাশের সময় : ২০২৩-১২-২৫, ১০:৩০ পূর্বাহ্ন /
মুরাদনগরে ১০ বছরেও সংস্কার হয়নি ৭ কিলোমিটার গ্রামীন সড়ক।
print news || Dailydeshsomoy

প্রকাশিত,২৫,ডিসেম্বর ,২০২৩

মুরাদনগর(কুমিল্লা)প্রতিনিধিঃ

দীর্ঘ ১০ বছরেও সংস্কার হয়নি গ্রামীন সড়ক। ফলে ভোগান্তি নিয়েই চলাচল করছেন স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রী ও বাসিন্দারা। এখানকার অধিকাংশ মানুষ ব্যবসায়ী, সামান্য বৃষ্টি হলেই রিক্সা কিংবা অটো সিএনজি চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে, যে কারনে দীর্ঘ সময় পায়ে হেঁটে ব্যবসায়ীদের তাদের কর্মস্থলে যেতে হচ্ছে। মুমুর্ষ রোগিদের হাসপাতালে নিয়ে যেতে বেকায়দায় পরতে হচ্ছে এ গ্রামের বাসিন্দাদের। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, প্রশাসন যেন দ্রুত সময়ের মধ্যে গুঞ্জর গ্রামের ৭ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের ব্যবস্থা গ্রহণ করে। এমন ভোগান্তির চিত্র ফুটে উঠেছে কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার নবিপুর পুর্ব ইউনিয়নের গুঞ্জর গ্রামে।

এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানাযায়, তেতুল তলা থেকে গুঞ্জর ঈদগাঁ পর্যন্ত দেড় কিলোমটিার, গুঞ্জর কবরস্থান থেকে গ্রামের ভিতর তপদুলের বাড়ী পর্যন্ত দুই কিলোমিটার, গুঞ্জর সরকারী হাসপাতাল থেকে গুঞ্জর উত্তর পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত আধাকিলোমিটার এবং কুমিল্লা সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক থেকে পল্লিবিদ্যুতের সামনে দিয়ে গকুল নগর পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তাসহ গ্রামের ভিতরে আরো কয়েকটি ছোট ছোট রাস্তা এমন বেহাল দশায় পরিনত হয়েছে।

৭০ বছর বয়সি বৃদ্ধ আমির হোসেন প্রতিবেদককে বলেন, আমাদের গুঞ্জর গ্রামে ১৬ হাজার ভোটার রয়েছে। এই গ্রামে ৬টি মসজিদ, দুটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি দাখিল মাদরাসাসহ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। দশ বছর আগে গ্রামটি রাস্তা ঘাটে খুব সুন্দর ছিল, বিগত দিন গুলোতে এই রাস্তা গুলোতে কোন ধরনের সংস্কার কাজ না হওয়ায় এ গ্রামের মানুষের সীমাহিন দুভোর্গ গোহাতে হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন বলেন, প্রায় ১০ বছরে আগে আমাদের গ্রামের সড়কগুলো পাঁকা করা হয়েছিল। কাজ করার ৩ বছর পরই সড়কগুলো বেহাল দশায় পরিণত হয়। বর্তমানে এ গ্রামের সড়কগুলোর বেশির ভাগ স্থান দেবে গেছে। অনেক স্থানে হয়েছে বড় বড় গর্ত,কার্পেটিং উঠে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে খানাখন্দের। মোট কথা গুঞ্জর গ্রামের সড়কগুলো এখন চলাচলের অনুপোযী হয়ে পড়েছে। বিকল্প কানো উপায় না থাকায় এই সড়ক দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন সাধারণ মানুষ, বিকল হচ্ছে যানবাহন।

উপজেলা প্রকৌশলী রায়হানুল আলম চৌধুরী জানান, গুঞ্জর গ্রামের রাস্তা গুলোর বেহালদশা এটা আমাদের নজরে এসেছে। এখন সংস্কার কাজের কোন বরাদ্ধ না থাকায় কাজগুলো করতে পারছি না, তবে সহসাই রাস্তাগুলোর সংস্কার কাজ করা হবে।