পটুয়াখালীতে পুলিশ সুপারের বুদ্ধিমত্তায় শিশু হত্যাকারী মা ও চাচা গ্রেফতার।


deshsomoy প্রকাশের সময় : ২০২৪-০২-০৮, ২:১৪ অপরাহ্ন /
পটুয়াখালীতে পুলিশ সুপারের বুদ্ধিমত্তায় শিশু হত্যাকারী মা ও চাচা গ্রেফতার।
print news || Dailydeshsomoy

প্রকাশিত,০৮, ফেব্রুয়ারি,২০২৪

সঞ্জিব দাস,গলাচিপা পটুয়াখালী, প্রতিনিধি

সন্তানের জন্য পৃথিবীর প্রথম এবং শেষ আশ্রয় ও ভালোবাসা মায়ের আঁচল তলে। সেই মায়ের হাতেই জীবন দিতে হলো ৮ বছরের শিশু মরিয়মের।

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার বেতাগী সানকিপুর ইউনিয়নের রামভল্লব গ্রামে সোমবার (০৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে নির্মম এ ঘটনাটি ঘটেছে। বুধবার ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান পুলিশ সুপার সাইদুল ইসলাম।

জিজ্ঞাসাবাদের পরে সত্যতা প্রমাণে গ্রেপ্তার করা হয়েছে মরিয়মের মা রিনা বেগমকে। আর ঘটনার দিন রাতেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে চাচা সেন্টু মৃধাকে। মরিয়ম ওই ইউনিয়নের রামভল্লব গ্রামের আবুল মৃধা ও রিনা বেগমের কন্যা এবং তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। এ ঘটনায় শোকে মুহ্যমান এলাকাবাসী জানাচ্ছেন নিন্দা ও ধিক্কার। জানা গেছে, একই বাড়িতে ফুফাতো বোনের বাসায় যায় মরিয়ম। কিন্তু সন্ধ্যা হলেও মরিয়মকে দেখতে না পেয়ে নাটকীয় কায়দায় খুঁজতে বের হয় মা রিনা বেগম। বিষয়টি জানাজানি হলে স্বজনরা সবাই খুঁজতে থাকে। অনেক খোঁজাখুঁজির পর রাত সাড়ে ৮ টায় বাড়ির পাশের পরিত্যক্ত ভিটায় গিয়ে মরিয়মের রক্তাক্ত মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে স্থানীয় লোকজন দশমিনা থানায় খবর দিলে রাতে থানা পুলিশ এসে মরিয়মের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, জমি নিয়ে বিরোধীয় পক্ষকে ফাঁসাতে ঘটনার দিন সন্ধ্যার পর পরিত্যক্ত ভিটায় নিয়ে মরিয়মের মাথায় চাচা সেন্টু লাঠি দিয়ে আঘাত করার পরে মা রিনা মুখে ওড়না ঢুকিয়ে, গলায় ফাঁস দিয়ে মরিয়মের হত্যা নিশ্চিত করে। তবে মরিয়মের বাবা আবুল মৃধা ও মা রিনা বেগম দাবি করেন, দুই বছর যাবৎ জমিজমা নিয়ে ভাইদের সাথে বিরোধ চলে আসছিলো। এই শত্রুতার জের ধরে তাদের মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। তবে ঘটনার দিন নিহত শিশু মরিয়মের মা রিনা বেগমের গায়ে রক্ত লেগে থাকায় কৌশল অবলম্বন করে পুকুরে ঝাঁপ দেন মেয়েকে খুঁজতে। আর এই সূত্র ধরেই পরবর্তীতে পুলিশ এই ঘটনার পিছনের ঘটনা বের করতে সক্ষম হয়েছে।

পটুয়াখালী পুলিশ সুপার সাইদুল ইসলাম ধ্রুববাণীকে বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে এসে মরিয়মের মা ও চাচার সাথে জিজ্ঞাসাবাদে পাঁচ মিনিটেই বুঝতে পেরেছি এই হত্যার সাথে মা ও চাচা জড়িত আছে। কিন্তু আমি আরো একদিন সময় নিয়ে পরিপূর্ণ সত্যতা বের করতে সক্ষম হয়েছি। শিশু মরিয়ম হত্যায় জড়িত থাকার কারণে তার চাচা ও মাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হত্যা মামলার প্রক্রিয়া চলছে।
এছাড়াও তিনি বলেন, পরিবার থেকে কেউ বাদি না হলে পুলিশ নিজেই বাদি হয়ে মামলা দায়ের করবে এবং সততার আইনের শাসন থেকে পাষাণী মা ও পাষণ্ড চাচা বের হতে পারবেনা।