পটিয়ার হাইদগাও ৫০ একর জমিতে বোরো ধানের (হাইব্রিড বীজ) সমলয় চাষাবাদ ব্লক প্রদর্শনী স্থাপনের উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক ফকরুজ্জামান ।


deshsomoy প্রকাশের সময় : ২০২৪-০১-৩০, ১০:৩৫ অপরাহ্ন /
পটিয়ার হাইদগাও ৫০ একর জমিতে  বোরো ধানের (হাইব্রিড বীজ) সমলয়  চাষাবাদ ব্লক প্রদর্শনী স্থাপনের উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক ফকরুজ্জামান ।
print news || Dailydeshsomoy

প্রকাশিত,৩০, জানুয়ারি,২০২৪

সেলিম চৌধুরী,পটিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি:-

যারা পটিয়ায় কৃষকদের ফসলী জমি নষ্ট করে ইজারাবিহীন ইজারার বাইরে গিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও মাটি কাটছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক ড.আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান।
মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) দুপুরে উপজেলার হাঈদগাও ইউনিয়নে ২০২৩-২৪ ইং অর্থবছর কমসূচীর আওতায় ৫০ একর জমিতে বোরো ধানের (হাইব্রিড বীজ) সমলয় চাষাবাদ ব্লক প্রদর্শনী স্থাপনের উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ নির্দেশ দেন।

প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে পটিয়া উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মোঃ আলাউদ্দিন ভূঞা জনীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ডিএই উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ আবদুছ ছোবহান, উপজেলা ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ডা: তিমির বরণ চৌধুরী, সহকারী ভূমি কর্মকর্তা ফাহমিদা আফরোজ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ কল্পনা রহমান।

ফারজানা আক্তারের সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন, হাইদগাও ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, কৃষি প্রকৌশলী মোহাম্মদ আমজাদ হোসেন, উদ্ভিদ সংরক্ষণ উপসহকারী মোহাম্মদ বুলবুল, সরোয়ার উদ্দিন ও এসএএও মহসিন আরাফাত, মোহাম্মদ শাহজাহান, মোহাম্মদ আবু রিয়াদ, মোস্তাক আহমদ সহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক আরো বলেন, সরকার কৃষকদের কল্যাণে সব সময়ই তাদের পাশে ছিল, আছে এবং আগামিতেও থাকবে।

‘স্বাধীনতার সময়ে মানুষ ছিল ৭ কোটি আর এদের খাবারের যোগান দিতো আমাদের কৃষক-কিষাণ ভাই ও বোনেরা’ এ কথা উল্লেখ করে- তিনি বলেন, ‘এখন বাংলাদেশে মানুষের সংখ্যা ১৭ থেকে ১৮ কোটি। বর্ধিত এ জনসংখ্যার প্রধান খাদ্যশষ্য সারা বছর ধরে চাষাবাদ করে ফলন ফলান এ দেশের কৃষকরা। উন্নত দেশের সাথে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশ আজ মাথা উচু করে ধান উৎপাদনে ৩য় স্থানে অবস্থান করছে।

প্রান্তিক কৃষকদের সবধরনের সহযোগিতার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় সংস্লিষ্ট প্রশাসননের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা সবার দৌড়গোড়ায় পৌঁছে যাবে ।

উপজেলার হাঈদগাও, শ্রীমাই, বাহুলী সহ অন্যান্য জায়গা থেকে কৃষি ও ফসলী জমি থেকে অবৈধভাবে বালু ও মাটি উত্তোলন বন্ধে কোন ধরনের ব্যবস্থা নিচ্ছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের জেলা প্রশাসক বলেন, যে বা যারা এই কাজে সম্পৃক্ত আছে তাদের প্রত্যেককেই আইনের আওতায় আনা হবে। কৃষকদের ক্ষতি হয় এমন কোন কর্মকান্ড বরদাস করবেননা। এসময় তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও এসিল্যান্ডকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে অবৈধ বালু ও মাটি কাটা বন্ধের নির্দেশ দেন।

সেলিম চৌধুরী
পটিয়া প্রতিনিধি
পটিয়া চট্টগ্রাম

৩০/০১/২০২৪ ইং।