গাজীপুরে জাল নোট তৈরি চক্রের পাঁচ সদস্য গ্রেফতার।


deshsomoy প্রকাশের সময় : ২০২৩-১২-২০, ৬:০৪ অপরাহ্ন /
গাজীপুরে জাল নোট তৈরি চক্রের পাঁচ সদস্য গ্রেফতার।
print news || Dailydeshsomoy

প্রকাশিত,২০,ডিসেম্বর,২০২৩

এম এইচ শাহীন, গাজীপুর প্রতিনিধি।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ৭ লক্ষাধিক টাকার জাল নোটসহ জাল টাকা তৈরির সাথে জড়িত ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে গাজীপুর মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশ।

মঙ্গলবার (২০ ডিসেম্বর) গাজীপুর মহানগরের বাসনের নলজানি এলাকা থেকে চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় ৭ লাখ ৪০ হাজার টাকার জাল নোট উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ থানার হাতপারা এলাকার মোঃ সুরুজ মিয়ার ছেলে মোঃ মাজহারুল ইসলাম(২৪), সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভপুর থানার মাঝারটেক এলাকার রমজান আলীর ছেলে মোঃ খোরশেদ আলম নবী(৪২), কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ থানার হাতপারা এলাকার মৃত ছমেদের ছেলে মোঃ জিয়াউর রহমান(৪০), গাজীপুরের শ্রীপুর থানার লোহাপাড়া এলাকার দুলাল মিয়ার ছেলে মোঃ এনামুল হক(২৪) ও কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ থানার হাতপাড়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে মোঃ শরীফ মিয়া(৩০)।

বুধবার দুপুরে গাজীপুর মেট্রোপলিটনের গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে(দক্ষিণ বিভাগ) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান গাজীপুর মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার
মোঃ নাজির আহমেদ খান।

আরও বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গাজীপুর মহানগরের বাসন থানাধীন নলজানী এলাকার জয়দেবপুর-চৌরাস্তা সড়কের পাশে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের সামনে থেকে প্রথমে এনামুক, জিয়াউর ও শরীফকে জাল নোট বেচা-কেনার মুহূর্তে ৫১,০০০ হাজার টাকার জাল নোটসহ গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বাসন থানাধীন দীঘিরচালার মুচিপাড়া এলাকা থেকে মাজহারুল ও খোরশেদ আলম নবীকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ৬,৮৯,০০০ হাজার টাকার জাল নোট ও ১ লিটার কোকাকোলার প্লাস্টিকের বোতলে রক্ষিত জালটাকা স্বচ্ছ করার রাসায়নিক তরল পদার্থ উদ্ধার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানায়, ঢাকা জেলার আশুলিয়ায় আলাউদ্দিন নামের এক ব্যক্তি জাল নোট তৈরি করে এবং তার সহযোগী খোরশেদ আলম এসব জাল নোট ক্রেতাদের কাছে সরবরাহ করে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার নাজির আহমেদ খান আরো জানান, জাল নোট তৈরির এ চক্রটি সারাবছর ব্যাপী জাল নোট তৈরি ও সরবরাহ করে আসছে। চক্রের মূলহোতা আলাউদ্দিনকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।