গলাচিপায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারামারিতে গুরুতর আহত মস্তফা।


deshsomoy প্রকাশের সময় : ২০২৪-০১-২৬, ৯:০৬ অপরাহ্ন /
গলাচিপায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারামারিতে গুরুতর আহত মস্তফা।
print news || Dailydeshsomoy

প্রকাশিত,২৬ জানুয়ারি ২০২৪

সঞ্জিব দাস, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ

পটুয়াখালীর গলাচিপায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারামারিতে গুরুতর আহত মো. মোস্তাফিজুর রহমান মস্তফার হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত মোস্তাফিজুর রহমান মস্তফা হচ্ছেন উপজেলার গোলখালী ইউনিয়নের ৩ নম্বর বড় গাবুয়া গ্রামের মৃত হাজী আহমেদ আলী হাওলাদারের ছেলে।

আহত মস্তফাকে উদ্ধার করে গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাক্তার মো. মেজবাহউদ্দিন জানান, আহত মোস্তাফিজুর রহমান মস্তফা আমার চিকিৎসাধীনে ৩য় তলায় ৫ নম্বর বেডে ভর্তি আছে। তার শরীরের বিভিন্ন অংশে কালো কালো দাগ আছে। তার বুকে ও পেটে চোট লেগেছে। আহত আহত মোস্তাফিজুর রহমান মস্তফা জানান, গত বুধবার (২৪ জানুয়ারি) রাতে জোলেখা বাজার নামক স্থানে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে চড়াও হয়ে মোশারেফ মাতব্বর, হাফিজুর, জাফর, আল আমিনসহ আরো অনেকে একত্রিত হয়ে আমাকে মারধর করে। আমার ডাক চিৎকারে এলাকাবাসী এসে পড়লে মারধরকারীরা পালিয়ে যায়। পরে এলাকাবাসী আমাদেরকে উদ্ধার করে গলাচিপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ বিষয়ে ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরু চৌকিদার, সাহিন, সবুজ, সাম্মি আক্তার এরা বলেন, মোস্তাফিজুর রহমান মস্তফা ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা ও জোলেখা বাজার সমিতির সভাপতি। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তাকে প্রতিপক্ষরা এলোপাথারীভাবে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। আমরা এ বিষয়টির তীব্র নিন্দা জানাই।

এ বিষয়ে ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. দেলোয়ার বলেন, বিষয়টি আমি শুনে চেয়ারম্যানকে জানিয়েছি। গোলখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নাসিরউদ্দিন হাওলাদার জানান, দু’পক্ষকে ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে মীমাংসার ব্যবস্থা করব। এ বিষয়ে প্রতিপক্ষ মোশারেফ মাতব্বর, হাফিজুরের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, আমরাও আহত হয়েছি। বিষয়টি ভুল বোঝাবুঝি ছিল। চেয়ারম্যান সাহেব বিষয়টি মীমাংসা করে দিলে ভাল হয়। গলাচিপা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. ফেরদৌস আলম বলেন, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।